পানির অপর নাম জীবন


পানির অপর নাম জীবন- একথা সবাই জানি; কিন্তু সুস্থ থাকতে সারাদিন পর্যাপ্ত পানি খেতে আমরা কতটুকুইবা নিয়ম মানি। বেশিরভাগ মানুষই পানির পিপাসা লাগলেই শুধু পানি পান করি, এটা ঠিক নয়। সারাদিন আমরা যদি নিয়ম মেনে পানি পান করি তাহলে থাকতে পারি অনেক রোগ থেকে ঝুঁকিমুক্ত। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়ম মেনে পানি পান করলে দেহের ওজন কমানো থেকে শুরু করে ক্যান্সারের ঝুঁকি পর্যন্ত কমানো সম্ভব।

প্রতিদিন কতটুকু পানি পান করতে হবে

বেঁচে থাকার জন্য এবং দেহের কোষকে সঠিকভাবে কাজ করার জন্য আমাদের প্রতিদিন প্রচুর পানি পান করা উচিত। পানি পানের ক্ষেত্রে নিয়ম হলো শরীরের ওজন যত পাউন্ড, দৈনিক তার অর্ধেক আউন্স পানি পান করা উচিত। ধরা যাক, আপনার ওজন ১৫০ পাউন্ড তাহলে আপনাকে দৈনিক ১৫০ এর অর্ধেক অর্থাৎ ৭৫ আউন্স পানি পান করতে হবে। এক গ্লাস পানি মানে ৮ আউন্স পানি। তাহলে ১৫০ পাউন্ড ওজনের ব্যক্তির দৈনিক সর্বনিম্ন ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করতে হবে। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় হলেও সারাদিন আমরা কিন্তু নিয়ম মেনে পানি পান করি না। পিপাসা ছাড়া স্বাদহীন পানি আয়োজন করে পান করার কথা অনেকেই চিন্তাও করি না। কিন্তু জেনে রাখা ভালো যে, মানুষের দেহের প্রতিটি অংশজুড়েই রয়েছে পানি, রক্তে ৮২ ভাগ, ফুসফুসে ৯০ ভাগ, মস্তিষ্কে প্রায় ৯৫ ভাগ অংশেই পানি থাকে।

 
কেন প্রতিদিন পর্যাপ্ত পানি পান করবেন

আমাদের দেহের মূল চালিকাশক্তিই এই পানি। প্রতিদিন আমাদের যে পরিমাণ ক্যালরি খরচ হয় এর ৮০ ভাগই পূরণ করে দেয় এই পানি। আবার কোনো কারণে যদি শরীরের কোনো অঙ্গে ২ ভাগেরও কম পানির অভাব দেখা দেয় সে ক্ষেত্রে আমাদের ডিহাইড্রেশনসহ তাৎক্ষণিকভাবে হিটস্ট্রোকও হতে পারে। আমাদের শরীরে প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রয়োজন পড়ে এই পানির। পানি দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে, বিভিন্ন বর্জ্য নিষ্কাশণে, খাবার হজম করতে ও হজমকৃত খাবার রক্তে নিতে, রক্ত তৈরিতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ক্ষেত্রে শরীরের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। তাই আমাদের সবার অবশ্যই প্রতিদিন নিয়ম মেনে পানি পান করার অভ্যাস করতে হবে। ব্রিটিশ ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের মতে, সুস্থ থাকার জন্য আমাদের প্রতিদিন আড়াই লিটার পানি পান করা উচিত। শারীরিক পরিশ্রম বেশি হলে বা শরীর বেশি ঘামলে আরও বেশি পানি পান করতে হবে। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এক গ্লাস পানি পান করলে শরীরের সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সক্রিয় হয়, খাবার খাওয়ার আধা ঘণ্টা আগে পানি পান করলে হজমে সাহায্য করে, ঘুমাতে যাওয়ার আগ মুহূর্তে এক গ্লাস পানি পান করলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে যায়। এছাড়াও পর্যাপ্ত পানি পানের মাধ্যমে পানি মাথা ধরা, শরীর ব্যথা, হৃদযন্ত্রের সমস্যা, আর্থ্রাইটিস, হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া, মৃগীরোগ, স্থূলতা, ব্রঙ্কাইটিস, হাঁপানি, কিডনি ও প্রস্রাবের সমস্যা, বমি, গ্যাস্ট্রাইটিস, ডায়রিয়া, পাইলস, ডায়াবেটিস, কোষ্ঠকাঠিন্য, চোখের রোগ, নাক ও গলার রোগসহ মেয়েলি নাানা রোগ থেকে ঝুঁকিমুক্ত থাকা যায়। তাই আসুন আজ থেকেই আমরা নিয়ম মেনে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পানি পান করি ও পানি পানে অন্যকে উৎসাহিত করি এবং সুস্থ থাকি।

পর্যাপ্ত পানি পান করতে যা করবেন

১. বাড়িতে হাতের কাছে পানির বোতল রাখুন।

২. কর্মক্ষেত্রে টেবিলে বা ডেস্কে একটি পানির বোতল চোখের কাছেই রাখুন।

৩. যারা সারাদিন ছুটোছুটির কাজ বা ভারি কাজ করেন তারা কাজের ফাঁকে নিয়ম মেনে একটু পরপর পানি পান করুন।

৪. প্রয়োজনে পানির সঙ্গে লেবু, চিনি, লবণ মিশিয়ে পান করুন।

৫. সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে ৩/৪ গ্লাস পানি পান করুন।

৬. রাতে ঘুমানোর ঠিক আগ মুহূর্তে অন্তত ১ গ্লাস পানি পান করুন।

৭. পানি পানের ক্ষেত্রে অবশ্যই তা বিশুদ্ধ কি না নিশ্চিত হোন।

৮. নিয়ম মেনে দিনে-রাতে কমপক্ষে আড়াই-তিন লিটার পানি পান করুন।

দৈহিক পরিশ্রম বেশি হলে পানিও বেশি করে পান করতে হবে।

 

ডা. মহসীন কবির 

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, লেখক ও গবেষক

ইনচার্জ, ইনস্টিটিউট অব জেরিয়েট্রিক মেডিসিন

বাংলাদেশ প্রবীণহিতৈষী সংঘ, ঢাকা

অ্যাম্বুলেন্স হার্বাল ও আয়ুর্বেদিক হোমিওপ্যাথি রুপ চর্চা