হৃদরোগ যখন তরুণদের অকাল মৃত্যুর কারণ

    আমেরিকান হার্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ৫০ বছরের কম বয়সীদের যে হার্ট অ্যাটাক কারণে অকাল মৃত্যু হয় তা হ্রাস পেয়েছে। তবে প্রাথমিক পর্যায়ের হৃদরোগের কারণে তাদের অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

    কম বেশি অনেকেই মনে করে থাকে অল্প বয়সে হৃদরোগের সমস্যা কেন হবে। তাই অল্প বয়সে বুকে ব্যথা কিংবা হৃদরোগের কোন লক্ষণ দেখা দিলে গুরুত্ব দেননা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছরে প্রায় সাত লাখেরও বেশি ব্যক্তি হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন। আক্রান্ত হওয়া ৫০ বছরের কম বয়সীরা কিছু আক্রান্ত হন হার্ট অ্যাটাকে আর কিছু আক্রান্ত হন ধূমপান সংক্রান্ত হৃদরোগে।

    হার্ট অ্যাটাক এর প্রধান এবং অন্যতম একটি কারণ হল করোনারি হার্ট ডিজিজ। যা করোনারি ধমনীকে জমে থাকা কোলেস্টেরল আটকে রাখে। প্রতি বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই করোনারি হার্ট ডিজিজে মারা যায়ে প্রায় তিন লাখ সত্তুর হাজার ব্যক্তি।

    উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, মানসিক চাপ, অতিরিক্ত ওজন, ধূমপান এবং অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন ইত্যাদি কারণে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। শুধু পূর্ণ বয়স্ক নয় হার্ট অ্যাটাক কিংবা হৃদরোগে যে কোন বয়সী আক্রান্ত হতে পারে।

    এছাড়া অ্যানজাইনা বা রক্তসঞ্চালনের যথাযত কাজের জন্য হৃৎপিণ্ড অনেক সময় প্রয়োজনীয় রক্ত গ্রহণ করতে পারে না। ফলে অ্যানজাইনা থেকে একজন ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা থাকে।

    বর্তমানে অতিরিক্ত ধূমপানের কারণে অল্প বয়সে হৃদরোগ ছাড়াও বিভিন্ন ধরণের রোগে আক্রান্ত হন। স্বাস্থ্যকর খাদ্য, নিয়মিত শারীরিক চর্চা, নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের অভ্যাসে একজন ব্যক্তিকে হার্ট অ্যাটাক কিংবা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে থাকে। তাছাড়া সকল ধরণের দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকা, প্রতিদিন পরিমিত ঘুম হলে জীবন হয়ে উঠে শঙ্কামুক্ত।