ফরমালিনযুক্ত খাবারের স্বাস্থ্যঝুঁকি

    ফর্মালিন নিয়ে কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশে বেশ হৈ চৈ চলছে।এটি মেশানো হচ্ছে নানা খাদ্যদ্রব্যে আর এতে করে আমরা আছি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে।আজকের আয়োজনে আসুন জেনে নেই ফর্মালিনের স্বাস্থ্যঝুঁকি সমূহ।

    ফর্মালিন কি :

    ফর্মালিন  হল ফর্মালডিহাইডের পলিমার। ফর্মালডিহাইড দেখতে সাদা পাউডারের মত। এটি পানিতে সহজেই মিশে যায়। শতকরা ৩০-৪০ ভাগ ফর্মালিনের জলীয় দ্রবনকে ফর্মালিন হিসাবে ধরা হয়।এই রাসায়নিক পদার্থটি সাধারনত টেক্সটাইল, প্লাষ্টিক, রং, কনস্ট্রাকশন, পেপার তৈরী ও মৃতদেহ সংরক্ষণে ব্যবহৃত হয়। ফরমালিনে ফরমালডিহাইড ছাড়াও মিথানল থাকে, যা শরীরের জন্য মারাতœক ক্ষতিকর। এটি লিভার বা যকৃতে মিথানল এনজাইমের উপস্থিতিতে প্রথমে ফরমালডিহাইড এবং পরে ফরমিক এসিডে পরিবর্তিত হয়। এই দুই পদার্থই শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

    ফরমালিনের কারনে স্বাস্থ্যের ক্ষতিকর দিক :

    • ফরমালিনে অবস্থিত ফরমালডিহাইড চোখের রেটিনাকে আক্রান্ত করে এবং রেটিনার কোষ ধ্বংস করে। এর ফলে মানুষকে অন্ধত্ব বরন করতে হতে পারে।
    • ফরমালিন, হাইড্রোজেন পার অক্সাইড, কার্বাইডসহ বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহারের কারণে তাৎক্ষণিকভাবে পেটের ব্যথা, হাঁচি, কাশি, শ্বাসকষ্ট, বদহজম, ডায়রিয়া, আলসার, চর্মরোগসহ বিভিন্ন রোগ হতে পারে।
    • ফরমালিন ধীরে ধীরে দেহের লিভার, কিডনি, হৃৎপিন্ড ও মস্তিষ্কসহ সব কিছুকেই আক্রান্ত করতে পারে। এটির কারনে লিভার ও কিডনি নষ্ট হয়।
    • ফর্মালিন মস্তিষ্কের কোষগুলোকে অকেজো করে দেয় ও এটির কারনে স্মৃতিশক্তি কমে যায়।
    • ফর্মালিন মানুষের চামড়ায় নানা রোগের সংক্রমন ঘটায় এবং চামড়ার ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।
    • ফরমালিনযুক্ত খাবার খাওয়ার ফলে পাকস্থলী, ফুসফুস ও শ্বাসনালিতে ক্যান্সার হতে পারে।
    • ফর্মালিন হাড়ের অস্থিমজ্জাকে আক্রান্ত করে ফলে দেহে রক্ত উৎপাদন কমে গিয়ে রক্তশূন্যতাসহ রক্তের অন্যান্য রোগ দেখা দেয়।শেষপর্যন্ত ব্লাড ক্যান্সারও হতে পারে।
    • মানবদেহে ফরমালিন ফরমালডিহাইড ফরমিক এসিডে রূপান্তরিত হয়ে রক্তের এসিডিটি বাড়িয়ে দেয়।এর ফলে শ্বাস-প্রশ্বাস অস্বাভাবিকভাবে ওঠানামা করে।
    • ফর্মালিন যুক্ত খাবার গর্ভবতী মায়েদের গর্ভের সন্তানকে মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেয়।এর কারনে সন্তান জন্ম দেয়ার সময় নানা জটিলতা দেখা দেয়। বাচ্চার জন্মগত বিকলঙ্গতা সহ প্রতিবন্ধী শিশুর জন্ম হতে পারে।
    • ফরমালিনসহ যে কোন রাসায়নিক পদার্থ সব বয়েশী মানুষের জন্যই ঝুঁকিপূর্ণ। তবে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি পরিবারের শিশু ও বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে। ফরমালিনযুক্ত দুধ, মাছ, ফলমূল এবং বিষাক্ত খাবার খাওয়ার ফলে শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হারিয়ে যাচ্ছে ও শিশুদের বুদ্ধিমত্তা দিন দিন কমছে।

    বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে এক আতংকের নাম ফরমালিন।ফল থেকে শুরু করে মাছ,ইদানিং শোনা যাচ্ছে দুধেও ফরমালিন মেশানো হচ্ছে।যে রাসায়নিক পদার্থটি হাসপাতালের মর্গে লাশ পচনরোধে ব্যবহার করা হয় সেই পদার্থটি আমরা মাছ,ফল কিংবা দুধ সতেজ রাখতে ব্যবহার করছি।বিবেকবর্জিত এ কাজটি যারা করছেন তাদের ছেলে মেয়ে সহ নিজেরাও কিন্তু সবার সাথে তাল মিলিয়ে সমান স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছেন।ফর্মালিনের ব্যবহার আমাদের দেশে এতটাই ভয়াবহ ভাবে ছড়িয়ে গেছে যা অকল্পনীয়।তাই ফর্মালিনমুক্ত খাবার পেতে আমাদের প্রয়োজন একটি সামাজিক আন্দোলন।সেই সাথে যে যেখানে আছি সেখান থেকেই সবাইকে ফর্মালিনের স্বাস্থ্যঝুঁকি সম্পর্কে জানাতে হবে ও সচেতন করতে হবে।

     

    ডা. মহসীন কবির

    জনস্বাস্থ্য বিষয়ক লেখক ও গবেষক

    কো-অর্ডিনেটর,হেলথবিডি২৪