ভাতের যত দোষগুণ


কথায় বলে মাছে-ভাতে বাঙালি। বাঙালির প্রধান খাবার ভাত। সারা দিন যত কিছুই খাই না কেন, যদি একবেলা ঠিকমতো ভাত না খাই তবে আমাদের অনেকেরই বলতে শোনা যায়, সারা দিন কিছুই খাইনি। আসলে আমরা ভাত খেতে অভ্যস্ত। কিন্তু এ  ভাত নিয়ে আমাদের মনে নানা প্রশ্ন। আমরা বেশিরভাগ মানুষই জানি, অতিরিক্ত ভাত খাওয়া শরীরের জন্য ভালো নয়। তারপরও আমরা অনেকেই শরীরের প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত পরিমাণে ভাত খেয়ে যাচ্ছি প্রতিনিয়ত। ভাত মানেই কার্বোহাইড্রেটের জোগান। কিন্তু অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট শরীরে মেদ জমানোসহ নানা রোগের অন্যতম কারণ। আমরা যারা তিনবেলা খুব বেশি পরিমাণে ভাত খাচ্ছি, তারা কিন্তু ডায়াবেটিস, হৃদরোগ ও অতিরিক্ত ওজনের কারণে নানা ব্যথাজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার প্রবল আশঙ্কায় রয়েছি। তাই প্রয়োজন সুষম খাবার। আর এ সুষম খাবারে ভাত তো বটেই, সঙ্গে থাকবে প্রয়োজন মতো শাকসবজি, মাছ-মাংস, ফলমূল, ডাল ইত্যাদি। মোটকথা, আমাদের প্রতিদিনের খাবারে থাকতে হবে যথাযথ কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন ও মিনারেলের যথাযথ জোগান। কোনোটা কমও নয়, আবার কোনোটা বেশিও নয়। যাক ভাত নিয়ে অনেক কথাই হলো, তবে জেনে রাখা ভালো, অতিরিক্ত ভাত শরীরের জন্য খারাপ সঙ্কেত বয়ে আনলেও প্রতিদিন পরিমিত ভাত খাওয়া কিন্তু অত্যন্ত জরুরি। ভাত তথা কার্বোহাইড্রেট আমাদের শরীরের শক্তির প্রধান জোগানদাতা। এছাড়া ভাতেরও রয়েছে নানা স্বাস্থ্যগুণ। ১০০ গ্রাম ভাতে আছে প্রায় ১০০ ক্যালরি শক্তি। ভাতে ফ্যাটের পরিমাণ খুবই কম, মাত্র ০.৪ গ্রাম। ময়দা, পরটা বা তেলে ভাজা খাবারের চেয়ে ভাত বেশ উপকারী। এছাড়া ভাতে যথেষ্ট পরিমাণে নিয়াসিন, ভিটামিন-ডি, ক্যালসিয়াম, ফাইবার, আয়রন, থায়ামিন ও রাইবোফ্লাভিনসহ ভাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে উপকারী স্টার্চ। ভাত কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার হওয়ায় এটি খুব সহজে হজম হয়, তাই কোষ্ঠকাঠিন্য হয় না। তাই হলফ করে বলা যায়, পরিমাণ মতো ভাত শরীরের জন্য অবশ্যই প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ একটি খাবার। তাই যারা ভাত খাওয়া নিয়ে চিন্তিত, তারা দিনে অন্তত দুবেলা নিশ্চিন্তে ভাত খেতেই পারেন, তবে অবশ্যই আপনার উচ্চতা ও ওজন অনুযায়ী প্লেটে ভাতের পরিমাণ নির্দিষ্ট রাখতে হবে। দেহের প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত ভাত খাওয়া মোটেও উচিত হবে না।

 

ডা. মহসীন কবির

জনস্বাস্থ্য বিষয়ক লেখক ও গবেষক

www.healthbd24.com

অ্যাম্বুলেন্স হার্বাল ও আয়ুর্বেদিক হোমিওপ্যাথি রুপ চর্চা