মাটি দিয়ে সৌন্দর্যচর্চা

    স্পাতে একে বলা হয় মাড থেরাপি, মাটিতে যেসব খনিজ উপাদান রয়েছে, তা আমাদের ত্বকের জন্য ভালো ক্লেনজারের ভূমিকা পালনের পাশাপাশি ময়েশ্চরাইজারের কাজও করে। সৌন্দর্যচর্চায় বিভিন্ন ধরনের মাটির ব্যবহার হয়। একেক ধরনের মাটির কাজ একেক রকম। রাহিমা সুলতানা জানান, লাল, সাদা, ধূসর, সবুজ এ চার ধরনের মাটি ব্যবহূত হয় রূপচর্চায়। এর মধ্যে কোনো কোনোটি নির্দিষ্ট নামে পরিচিত, আবার কোনো কোনোটি রং দ্বারা পরিচিত। রূপচর্চার ক্ষেত্রে ব্যবহূত বিভিন্ন ধরনের মাটি ও এর ব্যবহার নিয়ে কিছু পরামর্শ দেওয়া হলো।
    ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে মুলতানি মাটির জুড়ি নেই। আমাদের দেশে প্রসাধনীর দোকানে এ মাটি কিনতে পাওয়া যায়। এর বিকল্প হিসেবে আমাদের দেশের লাল আঠালো এঁটেল মাটিও ব্যবহার করা যেতে পারে। ময়মনসিংহ, কুমিল্লা ও নরসিংদীর পাহাড়ি ও টিলা অঞ্চলে এ মাটি পেতে পারেন। এই মাটির সঙ্গে গোলাপজল মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন। ২০ মিনিট রেখে পানি নিয়ে ধুয়ে নিন। এতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে। ত্বকের মরা কোষ ও ছোপ ছোপ কালো দাগ দূর করতে সবুজ মাটি ব্যবহার করতে পারেন। এটি স্ক্রাবের কাজ দেবে। স্পাতেও এ মাটি ব্যবহার করা হয়। গোসলের আগে পুরো গায়ে এ মাটি নিয়ে হালকাভাবে মালিশ করে নিন। এর সঙ্গে কয়েক ফোঁটা জলপাই তেল মিশিয়ে নিলে আরও ভালো কাজে দেবে। তবে এ মাটি এভাবে মুখমণ্ডলে ব্যবহার না করাই ভালো। মুখে ব্যবহারের ক্ষেত্রে পেঁপে কিংবা আপেলের পেস্ট মিশিয়ে হালকা করে স্ক্রাব করা যেতে পারে। ২০ মিনিট হালকা মালিশের পর ধুয়ে নিন। সবুজ মাটি মূলত ফ্রান্সের মাটি। তবে আমাদের দেশের বঙ্গোপসাগরের নিচের মাটি এর বিকল্প হতে পারে। কখনো কক্সবাজার বেড়াতে গেলে সুবিধামতো সংগ্রহ করে আনতে পারেন।
    ত্বককে কোমল ও উজ্জ্বল করতে ময়মনসিংহের পাহাড়ি লাল মাটি ব্যবহার করতে পারেন। পাহাড়ের একটু গভীর থেকে মাটি সংগ্রহ করা ভালো। এ লাল মাটি কেবল পানির সঙ্গে মিশিয়ে গায়ে মালিশ করতে পারেন। এতে ত্বক কোমল হয়।
    চোখের নিচের কালো দাগ, ত্বকের বলিরেখা দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন সাদা মাটি। এটি তৈলাক্ত ত্বকের জন্য বেশ উপযোগী। ব্রণের সমস্যা কমে যায় এ মাটির ব্যবহারে। পানি দিয়ে গুলিয়ে এ মাটি সরাসরি রূপচর্চার জন্য ব্যবহার করা যায়। এ মাটি আমাদের দেশের নয়। এটি পাওয়া যায় প্রসাধনীর দোকানে। বিশেষ করে চকবাজারে খোঁজ করলে এ মাটি সংগ্রহ করা যাবে। আমাদের দেশে পুকুরের নিচে একধরনের কালো রঙের কাদা মাটি পাওয়া যায়। এ কাদা মাটি ত্বককে মসৃণ করে। গোসলের আগে সারা গায়ে মালিশ করে ধুয়ে নিতে পারেন।

    সূত্রঃ প্রথম আলো